জ্ঞানার্জনে- মনুষ্যবোধের জাগরণে চিত্তের উৎকর্ষ সাধনে সত্য সুন্দরের জয়গানে এসো এ শিক্ষাঙ্গনে। -শিক্ষার্থীদের প্রতি। কলারোয়া সরকারি কলেজ কর্তৃপক্ষ।

প্রফেসর বাসুদেব বসু

দ্রুত পরিবর্তনশীল বিশ্ব পরিস্থিতিতে বাস্তবসম্মত ও ফলপ্রসু শিক্ষার মাধ্যম হিসেবে একাডেমিক ক্যালেন্ডার ও পাঠ-পরিকল্পনা একটি ধারণা। আধুনিক শিক্ষার মৌলিক লক্ষ্য হল শিক্ষার্থীর মানসিক ও বুদ্ধিবৃত্তিক দক্ষতার উন্নতি সাধন, জাতীয় জীবনে মূল্যবোধের প্রতিষ্ঠা, মানবিক আচরণের কল্যাণমুখী ও কাঙ্ক্ষিত পরিবর্তন, যুগোপযোগী প্রযুক্তিবিদ্যা ও কর্মমুখী শিক্ষার উপর গুরুত্বারোপ, নৈতিক চরিত্র গঠন এবং সময়ের সুপরিকল্পিত ব্যবহার, সর্বোপরি শিক্ষার্থীদের দেশাত্মবোধে উজ্জীবিত করা।

একবিংশ শতাব্দীর প্রতিযোগিতামূলক ও সম্ভাবনাময় বিশ্ব চাহিদার প্রেক্ষাপটে কার্যকর শিক্ষার মাধ্যমে হিসেবে একাডেমিক ক্ষেত্রে পাঠ-পরিকল্পনা অপরিহার্য ভূমিকা পালন করে থাকে। বর্তমান বিশ্বে যে সব দেশ শিক্ষাদীক্ষায় উন্নতির চরম শিখরে অবস্থান করছে, সে সব দেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় পাঠ-পরিকল্পনা এক কার্যকর পদক্ষেপ। কলারোয়া সরকারি কলেজ অফুরন্ত সম্ভাবনাময় তরুণ শিক্ষার্থীদের সৎ ও দক্ষ মানবসম্পদে পরিণত করার মানসে প্রতিটি মুহূর্তকে যথাযথভাবে ব্যবহারের চেষ্টায় শিক্ষাবর্ষের প্রথম দিন থেকেই একাডেমিক ক্যালেন্ডার অনুসারে প্রতিটি কার্যক্রম পরিচালনা করতে চলেছে।

শিক্ষাবোর্ড ও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রদত্ত সিলেবাসের উপর ভিত্তি করে পাঠ-পরিকল্পনা বিন্যস্ত করা হয়েছে। প্রতিটি শিক্ষাবর্ষ ও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা অনুযায়ী প্রতিটি বিষয়ে নির্ধারিত অংশ নির্দিষ্ট সময়ে ক্লাসে পড়ানো এবং পঠিত বিষয়ের উপর নিয়মিত পরীক্ষা গ্রহণ পাঠ-পরিকল্পনার অন্তর্ভুক্ত।

একাডেমিক ক্যালেন্ডার শিক্ষাবর্ষের শুরুতেই কলেজের আগামী দিনের কর্মকাগু সম্পর্কে মূলত: ছাত্র, শিক্ষক এবং অভিভাবকদের অবহিতকরণের এক শিক্ষা-রুটিন। এই রুটিনের কারণে নির্ধারিত সময়ে সিলেবাস শেষ করার ব্যাপারে তাদের ন্যূনতম উৎকন্ঠা বা দুশ্চিন্তা থাকে না। সর্বোপরি একাডেমিক ক্যালেন্ডার ও পাঠ-পরিকল্পনা শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের নিকট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের একটি লিখিত প্রতিশ্রুতি ও বটে।